উজিরপুরে ১১৩ মন্ডপে দূর্গাপূজা উদযাপনের প্রস্তুতি প্রতিমা তৈরির মাটির কাজ শেষ,শুরু হয়েছে রঙের

উজিরপুর

হিন্দু ধর্মালম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গা পূজা। এ পূজায় দেবীর প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত এখন মৃৎ শিল্পীরা। দিন রাত পরিশ্রম করে তাদের নিপুন হাতের ছোঁয়ায় তৈরি করছেন একেকটি অসাধারণ সুন্দর প্রতিমা। বরিশালের উজিরপুর উপজেলার বিভিন্ন মন্দির প্রাঙ্গনে তৈরি হচ্ছে নানা আকার আর ঢংয়ের দূর্গা দেবীর মূর্তি। উপজেলার ৯টি ইউনিয়ন ও পৌরসভায় শারদীয় দুর্গোৎসব অনুষ্ঠিত হবে। আর এই উৎসবকে সামনে রেখে নিরাপত্তাসহ বিভিন্ন ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছে উপজেলা প্রশাসন ও পূজা উদযাপন কমিটি। আগামী ৩ অক্টোবর মহাপ মীতে দেবীর বোধনের মধ্য দিয়ে দুর্গাৎসবের মূল পূজা শুরু হয়ে ৮ অক্টোবর বিজয়া দশমীতে প্রতিমা বিসর্জন দিয়ে শেষ হবে। এ পূজাকে সামনে রেখে সবচেয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন মৃৎ শিল্পী কারিগররা। আর সেই প্রতিমা শিল্পীরা সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত কাঁদামাটি, খড়, কাঠ, বাঁশ আর সুতলি দিয়ে প্রতিমা তৈরি করছেন। ইতিমধ্যে প্রতিটি পূজা মন্ডপগুলোতে প্রতিমা তৈরির মাটির কাজ শেষ হয়েছে। এখন শুরু হয়েছে রংঙের কাজ। দেবী দূর্গাসহ প্রতিমাগুলোকে মনোমুগ্ধকর অনিন্দ্য সুন্দর রূপ দিতে ও নিখুঁতভাবে ফুটিয়ে তুলতে সর্বোচ্চ মনোযোগ দিয়ে কাজ করছেন এই শিল্পীরা। স্থানীয় মৃৎ শিল্পী ছাড়াও জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে কারিগররা এ উপজেলায় এসে প্রতিমা তৈরির কাজ করছেন। এ বছর উপজেলার ১১৩টি পূজা মন্ডপে প্রতিমা তৈরি হচ্ছে। প্রতিটি মন্ডপে প্রতিমা নির্মাণের পাশাপাশি সার্বজনীন স্থায়ী মন্দিরগুলোতে সাজসজ্জা ও অস্থায়ী মন্ডপগুলোতে চলছে সু-দৃশ্য আলোকসজ্জার কাজ। পূজা মন্ডপগুলোতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের কঠোর নিরাপত্তা থাকবে বলে জানিয়েছে স্থানীয় উপজেলা প্রশাসন। উপজেলা পূজা উদযাপন কমিটির সাধারন সম্পাদক সহদেব কুমার দাস সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, উপজেলার সাতলা ইউনিয়নের ২০টি, হারতায় ১৭টি, জল্লায় ২০টি, ওটরায় ৫টি, শোলকে ১১টি, বড়াকোঠায় ৭টি, বামরাইলে ৬টি, শিকারপুরে ৮টি, গুঠিয়া ইউনিয়নে ৮টি ও পৌরসভায় ১১টিসহ মোট ১১৩টি মন্ডপে পূজা উদযাপনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। উজিরপুর বন্দর কেন্দ্রীয় সার্বজনীন দূর্গা মন্দির কমিটির সভাপতি বরুন মিত্র জানিয়েছেন, তারা মন্ডপে পূজা উদযাপনের জন্য সকল প্রস্তুতি শেষ করেছেন। পূজা মন্ডপে সকল প্রকার নিরাপত্তার জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি মন্দির কমিটির পক্ষ থেকেও ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।